শেষ মুহুর্তে ইলিশের হাট সরগরম

হরিণা ফেরিঘাট মৎস্য আড়ৎ। ছবি: ফোকাস মোহনা.কম

চাঁদপুর: চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে শুরু করে মেঘনা নদীর হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত আগামী ৭ থেকে ২৮ অক্টোবর ২২ দিন সারাদেশে এই মাছ শিকার বন্ধ থাকবে। এ সময় দেশব্যাপী ইলিশ পরিবহন, কেনা-বেচা, মজুদ ও বিনিময়ও নিষিদ্ধ থাকবে। ইলিশ আহরণে বিরত থাকা জেলেদের সরকার ভিজিএফের মাধ্যমে খাদ্য সহায়তা দেবে। ইলিশ শিকারের নিষেধাজ্ঞার সংবাদ পেয়ে অনেকেই ছুটছেন ইলিশের আড়ৎগুলোতে। যার ফলে শেষ মুহুর্তে চাঁদপুরের ইলিশের হাট এখন সরগরম।

রবিবার (২ অক্টোবর) বেলা ১১টায় চাঁদপুর সদর উপজেলার হানারচর ইউনিয়নের হরিণা ফেরিঘাট ইলিশের আড়তে দেখাগেছে খুবই সরগরম এবং ইলিশ বিক্রি হাঁক-ডাক। তবে ইলিশের দাম কমেনি। ৯শ’ গ্রাম থেকে দেড় কেজি ওজনের ৫টি ইলিশের ডাক উঠল ৬ হাজার টাকা। ৫ হাজার টাকা ডাক উঠে মুহুর্তের মধ্যে বিক্রি হয়ে গেলে ৬ হাজার টাকা।

হরিণা মৎস্য আড়তে অধিকাংশ ক্রেতা শহরের বিপনীবাগ বাজারের খুচরা বিক্রেতারা। তারা সকাল থেকেই অল্প অল্প করে ডাকে ইলিশ ক্রয় করেন। বিকেলের আগেই চলে আসেন বিপনীবাগ বাজারে। তবে এসব ইলিশ জেলেরা সরাসরি নিয়ে আসে এবং বরফ দেয়া হয় না, যে কারণে দামও বেশী।

দুই যুবক ঢাকা থেকে এসেছেন হরিণাঘাটে রূপলী ইলিশ ক্রয় করার জন্য। তাদের ক্রয় করা ইলিশগুলো বক্স করে রওয়ানা হলেন মটর বাইক নিয়ে। বিভিন্ন স্থান থেকে খুচরা ইলিশ ক্রয় করার জন্য এই আড়তে আসেন। যে কারণে হরিণা ইলিশের আড়তে ইলিশের স্তুপ তৈরী হওয়ার সুযোগ থাকে না। প্রতিদিন কমপক্ষে ১০ থেকে ১৫ মণ ইলিশ এই আড়তে বিক্রি হয় জানালেন ব্যবসায়ীরা।
ফম/এমএমএ/

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম