শনিবার হাইমচর উপজেলা আ.লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন

নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসবের আমেজ

ছবি: সংগ্রহীত।

হাইমচর (চাঁদপুর): দীর্ঘ ১৯ বছর পর শনিবার (১০ ডিসেম্বর) হাইমচর উপজেলা আওয়ামী লীগ এর ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। দীর্ঘ বছর পরে সম্মেলন উপলক্ষে আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীদের মাঝে এখন বইছে উৎসবের আমেজ। ডোল, তবলা, ব্যান্ড পার্টি, বাশি, ব্যানার- ফেস্টুনসহ নানা রঙ্গে সজ্জিত নেতা কর্মীর মিছিলসহ যোগদিতে সব ধরণের প্রস্তুতি নিয়েছেন।

২০০৩ সালে সর্বশেষ অনুষ্ঠিত সম্মেলনে নির্বাচিত বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগ কমিটির পর নতুন কমিটি পেতে যাচ্ছে হাইমচর উপজেলা আওয়ামী লীগ।

শনিবার বেলা ১ টায় উপজেলা সদর আলগীবাজারস্থ ঐতিহ্যবাহী দূর্গাপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলন কে ঘিরে পুরো মাঠ জুড়ে বিশাল প্যান্ডেল ও মঞ্চ প্রস্তুত করা হয়েছে।

এবারের সম্মেলনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ মনোনীত করার কথা থাকলেও উপজেলা আওয়ামী লীগ এর পক্ষ হতে সম্মেলনে কাউন্সিলর তালিকাও প্রস্তুত করা হয়েছে।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন শিক্ষামন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডাঃ দীপু মনি এমপি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ত্রাণ ও সমাজ কল্যান সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সেলিম মাহমুদ।

সম্মেলন উদ্বোধন করবেন চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নাসির উদ্দিন আহমেদ।

প্রধান বক্তা জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল।

বিশেষ বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখবেন জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি ডাঃ জে আর ওয়াদুদ টিপু ও জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক আহসান উল্ল্যাহ আখন্দ।

সভাপতিত্ব করবেন উপজেলা আওয়ামী লীগ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হুমায়ুন কবির প্রধানীয়া এবং সঞ্চালনায় থাবনে উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ নূর হোসেন পাটওয়ারী।

এবারের সম্মেলনে সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হুমায়ুন কবির প্রধানীয়া, সহ সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান এম এ বাশার, সহ-সভাপতি শাহজাহান পেদা, সহ-সভাপতি হুমায়ুন কবির পাটওয়ারী ও হাবিবুর রহমান বেগ।

উপজেলা আওয়ামী লীগ বর্তমান সাধারণ সম্পাদক নূর হোসেন পাটওয়ারী আনুষ্ঠানিক কোন পদে প্রার্থীতা ঘোষণা না করলেও তার সমর্থকরা চাইছেন আবার তাকেই যেন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।

সাধারণ সম্পাদক পদ প্রার্থী হয়েছেন-উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহেদ হোসেন বেপারী, উপজেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাহাব উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম জাহিদ, উপজেলা ছাত্রলীগ সাবেক সভাপতি ফখর উদ্দিন আলী আহমেদ, আলগী উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান পাটওয়ারী।

হাইমচর উপজেলা আওয়ামী লীগ ত্রিবার্ষিক সম্মেলন বিষয়ে সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী বলেন, আমরা ইতি মধ্যেই সম্মেলন সফল ও সার্থক করতে সকল প্রস্তুতি নিয়েছি। সম্মেলন হবে উৎসবমুখর, কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের আগমনকে স্বাগত জানিয়ে সম্মেলনে লোক সমাগম হবে স্মরনকালের চাইতে বেশী। সম্মেলন উপলক্ষে তৃনমুল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনা লক্ষ করা গেছে। নেতা কর্মীরা উৎসবের আমেজে রঙ্গিন সাঝে হাজার হাজার কর্মী সমর্থকসহ মিছিল নিয়ে সম্মেলনে যোগ দিবে।

তিনি বলেন, ২০০৩ সালে দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে বর্তমান কমিটির নেতৃত্বে হাইমচর উপজেলা আওয়ামী লীগ দেশে অন্যতম একটি সাংগঠনিক ইউনিট হিসেবে সুনামের সহিত কাজ করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় স্বাধীনতার পর হাইমচরে ২০০৮ সালে জাতীয় নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ডা দীপু মনি এমপিকে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী করা হয়। ডা দীপু মনি এমপিকে পর পর ৩ বার এমপি নির্বাচনে বিজয়ী করা ছাড়াও স্থানীয় উপজেলা ও ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রার্থীরা বিজয়ী হয়। বর্তমান কমিটির গতিশীল নেতৃত্বের ফলে শক্তিশালী ইউনিট হিসেবে হাইমচর উপজেলা আওয়ামী লীগ সক্ষমতা দেখায়।

নুর হোসেন বলেন, বর্তমান কমিটির ৬৭ সদস্যদের মধ্যে সভাপতি মোতালেব জমাদার সহ ১৯ জন মৃত্যুবরণ করেন। অনকেই বয়জেষ্ঠ হওয়ায় সম্মেলনে দল মনোনীত সভাপতি ও সম্পাদকের নেতৃত্বে নবীন প্রবীণদের সমন্বয়ে নতুন কমিটি আরো বেশী শক্তিশালী ও গতিশীল ইউনিট হিসেবে কাজ করে জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে তার কন্যা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ভিশন ৪১ বাস্তবায়নে কাজ করবে।

নিজের প্রার্থীতা বিষয়ে তিনি বলেন, দীর্ঘদিন দলের দায়িত্ব পালন করেছি। দলের তৃণমূল নেতাকর্মীরা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আমাকে পুনরায় চাইছে। তবে নেতা নির্বাচন করবে দলের সভাপতি নির্দেশে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। সেখানে দল যে সিদ্ধান্ত দিবে সভাপতি বা সম্পাদক যে পদে বা যেখানে রাখবেন অথবা যাকে নেতা নির্বাচিত করবে তার নেতৃত্বেই দলের জন্য কাজ করার অঙ্গীকারবদ্ধ। দল মত নির্বিশেষে সম্মেলন সফল ও সার্থক করতে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
ফম/এমএমএ/

সংবাদদাতা | ফোকাস মোহনা.কম