সিজোফ্রেনিয়া রোগীর পেট থেকে বের হলো ১৮৭ মুদ্রা

ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের এক ব্যক্তির পেটে দেড় শতাধিক মুদ্রার হদিস পেয়ে বিস্মিত চিকিৎসকরা। ৫৮ বছর বয়সী ওই ব্যক্তির পেটে হঠাৎ করে যন্ত্রণা শুরু হওয়ায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর আঁতকে ওঠেন চিকিৎসকরা। তার পেটে ১৮৭টি মুদ্রার খোঁজ পেয়েছেন তাঁরা।

সম্প্রতি পেটে তীব্র যন্ত্রণা ওঠায় ওই ব্যক্তির আত্মীয়রা তাঁকে রাজ্যের বাগালকোটের জেলার শ্রী কুমারেশ্বর হাসপাতালে নিয়ে যান। চিকিৎসকরা জানতে পারেন, ওই ব্যক্তি সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত। এ রোগের কারণেই ভুলবশত কয়েনগুলো গিলে ফেলেছিলেন তিনি।

চিকিৎসক ঈশ্বর কালাবুর্গী জানান, ওই ব্যক্তি একটি মানসিক রোগে ভুগছিলেন। দুই-তিন মাস ধরে তিনি মুদ্রা গিলতে থাকেন। পেটে অসহ্য যন্ত্রণা ও বমির জন্য তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

উল্লেখ্য, সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা বাস্তব আর কল্পনাকে গুলিয়ে ফেলেন। একবার এই রোগে আক্রান্ত হলে সাধারণত সারা জীবনই চিকিৎসার প্রয়োজন হয়।

অস্ত্রোপচার করে মোট ১৮৭টি কয়েন বের করা হয়, যার ওজন ছিল প্রায় দেড় কেজি। কয়েনগুলোর মধ্যে ৫৬টি পাঁচ রুপির, ৫১টি দুই রুপি এবং ৮০টি এক রুপির ছিল। অস্ত্রোপচারের পর রোগী সুস্থ আছেন বলে জানা গেছে। তবে তাঁকে চিকিৎসকদের নজরদারিতে রাখা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, এই রোগের অন্যতম প্রধান একটি লক্ষণ হলো বাস্তব পরিস্থিতির ভুল ব্যাখ্যা করা। কিছু ক্ষেত্রে সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা ভাবেন, কেউ তাঁদের ক্ষতি করার চেষ্টা করছেন, কেউ কেউ খ্যাতি, ভালোবাসার সম্পর্কেও ভ্রান্ত ধারণা পোষণ করে থাকেন। কেউ কেউ এমন কিছু দেখেন, যার আদৌ কোনো বাস্তব অস্তিত্ব নেই। কোনো কোনো রোগীর ক্ষেত্রে কথা বলার সমস্যাও দেখা দেয়।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

ফোকাস মোহনা.কম