শেখ হাসিনাই আবার বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবেন: ড. সেলিম মাহমুদ

চাঁদপুর: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ বলেন, বিএনপিসহ রাষ্ট্রবিরোধী শক্তি যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন, যতই নাশকতার পরিকল্পনা করুক না কেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগণ আবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করবে। রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা এদেশের জনগণকে সাথে নিয়ে সকল অপশক্তিকে প্রতিহত করবেন।

বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) দুপুরে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কচুয়া উপজেলার ত্রিবার্ষিক কাউন্সিলে তিনি এ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বলেন, বিএনপি আজ দেশবিরোধী রাজনীতিতে যুক্ত। তারা দেশের রাজনীতির মাঠ ছেড়ে বিদেশে লবিস্টের মাধ্যমে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার খরচ করে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এই অশুভ শক্তিটি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সরকারকে উৎখাত করতে চায়। তারা আওয়ামী লীগকে উৎখাত করতে চায়।

ড. সেলিম মাহমুদ বলেন, আওয়ামী লীগ কোন ঠুনকো সংগঠন নয়। এই অশুভ শক্তি যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন, আওয়ামী লীগকে উৎখাত করতে পারবে না। এ দেশের প্রতিটি ধূলিকণা, প্রতিটি ঘাস, প্রতি ইঞ্চি মাটি আর প্রতিটি জলবিন্দুর সাথে আওয়ামী লীগের সম্পর্ক। ‌‌‌‌

আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বলেন, কয়েকটি দূতাবাস সম্প্রতি বাংলাদেশের নির্বাচন প্রক্রিয়া নিয়ে যে বিবৃতি প্রদান করেছে, সেটি কূটনীতিকদের নিয়ন্ত্রণকারী আন্তর্জাতিক আইন ভিয়েনা কনভেনশনের লঙ্ঘন। ভিয়েনা কনভেনশন অনুযায়ী কোনো বিদেশি কূটনীতিক সংশ্লিষ্ট দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে পারেন না। যে কোনো দেশের নির্বাচন প্রক্রিয়া সে দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়। তাই বাংলাদেশের নির্বাচন প্রক্রিয়া নিয়ে বিদেশি কূটনীতিকদের মন্তব্য আন্তর্জাতিক আইন ভিয়েনা কনভেনশনের লঙ্ঘন। ভিয়েনা কনভেনশন অনুযায়ী, বিদেশি কূটনীতিকগণ তাদের কার্যক্রম কেবলমাত্র তাদেরকে গ্রহণকারী রাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কিংবা সেই রাষ্ট্র কর্তৃক দায়িত্বপ্রাপ্ত কোনো কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে পরিচালিত হবে। এর বাইরে কূটনীতিকগণ সংশ্লিষ্ট দেশে কোনো রাজনৈতিক বিষয় কিংবা অন্য কোনো বিষয়ে জনসম্মুখে কোনো ধরনের মন্তব্য করতে পারেন না।

ড. সেলিম বলেন, কূটনীতিকগণ কর্তৃক এই ধরনের আইনের লঙ্ঘন শুধু বাংলাদেশের জন্যই হুমকিস্বরূপ নয়, এ ধরনের কাজ বিশ্ব সম্প্রদায়ের স্বার্থ বিরোধী। কারণ আজকে বিদেশি কূটনীতিক যখন বাংলাদেশে এসে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করেন, এই ধরনের কাজ পৃথিবীর অন্যান্য দেশেও ঘটতে পারে । এমনকি যে সকল কূটনীতিক আজ এই কাজটি বাংলাদেশে করছেন, তাদের দেশেও অন্য দেশের কূটনীতিকরা আন্তর্জাতিক আইন ভিয়েনা কনভেনশন লংঘন করতে পারে।

কচুয়া উপজেলার হযরত শাহ নেয়ামত শাহ স্কুল মাঠে কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী। সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য এবং কচুয়ার সংসদ সদস্য ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীর, আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন নাহার লাইলি, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য ডা. গোলাম রাব্বানী চিনু, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটোয়ারী দুলাল।

কাউন্সিল সভার উদ্বোধন করেন চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন আহমেদ।

কাউন্সিল অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন চৌধুরী সোহাগ।

ফম/এমএমএ/

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম