শহীদ শেখ কামালের প্রগতিশীল চিন্তাভাবনা বুকে ধারণ করতে হবে : ডিসি কামরুল হাসান

চাঁদপুরে শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী পালিত

চাঁদপুর :  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শহীদ শেখ কামালের ৭৩ তম জন্মবার্ষিকী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শহীদ শেখ কামালের ৭৩ তম জন্মবার্ষিকী বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে চাঁদপুরে পালিত হয়েছে।

শুক্রবার (৫ আগষ্ট) সকাল ১০টায় শহরের স্টেডিয়াম সম্মুখে শহীদ শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠন।

পরে স্টেডিয়ামের ভিআইপি প্যাভলিয়ানে শহীদ শেখ কামালের জীবনী নিয় আলোচনা সভা ও স্মৃতিচারণ হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান।

তিনি বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ছিলেন। তিনি ছিলেন একজন ভালো মানুষ।

জেলা প্রশাসক তরুন প্রজন্মের উদ্দেশ্যে বলেন, তিনি সবসময় সাদামাটা জীবনযাপন করেছেন। তাঁর প্রগতিশীল চিন্তাভাবনা বুকে ধারণ করতে হবে। তাঁকে অনুসরণ করতে পারলে নিজেকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে পারবো। ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের সংরক্ষিত রুমে গেলে তাঁর সম্পর্কে জানা যাবে। ১৫ আগস্ট নির্মম হত্যা না হলে বাংলাদেশ পেত বহুমুখী এক নেতাকে।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ইমতিয়াজ হোসেন এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো. মিলন মাহমুদ বিপিএম (বার)।

তিনি বলেন, তাঁর এই ২৬ বছরেরর জীবনে যেসব সেক্টরের হাত দিয়েছেন সেসবস সেক্টরেই অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করেছেন। যেখানেই কাজ করেছেন প্রতিভার সাথে কাজ করে গেছেন। ক্রীড়া সংগঠকের পাশাপাশি তিনি সাংস্কৃতিকমনাও ছিলেন। দেশের ক্রীড়ার মান উন্নয়নে তিনি নেতৃত্বে দিয়েছেন। ছাত্র রাজনীতিতে উনি কখনও পদপদবী যান নি। দেশের স্বার্থে তিনি কাজ করে গিয়েছেন৷

সাংবাদিক এমআর ইসলাম বাবু’র সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা পরিষদ প্রশাসক আলহাজ্ব ওচমান গনি পাটওয়ারী, পৌর মেয়র মো. জিল্লুর রহমান, যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ ওয়াদুদ, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা ডা. সৈয়দা বদরুন্নাহার চৌধুরী, পুরান বাজার ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ রতন কুমার মজুমদার, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জহিরুল ইসলাম, সহ-সভাপতি আব্দুর রশিদ সর্দার প্রমূখ।

আলোচনা ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানের পূর্বে সকল শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সানাউল্লাহ মিয়া।+

ফম/এসএস পলাশ/ এমএমএ/

শাহরিয়া পলাশ | ফোকাস মোহনা.কম