পদ্মা সেতুর উদ্বোধন, ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ: ডিসি কামরুল হাসান

চাঁদপুরের জেলা প্রশাসকের  সাথে মতলব উত্তরের জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও সুধীজনদের মতবিনিময়

চাঁদপুর: নবাগত চাঁদপুর জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসানের সাথে মতলব উত্তরের জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও সুধীজনদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) সকালে উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান। এরআগে মতলব উত্তর থানা ও থানার কার্যক্রম পরিদর্শন করেন তিনি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, আমাদের চাঁদপুর জেলা বন্যার ঝুঁকিতে আছে, আমাদের সবাই সতর্ক থাকতে হবে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও ব্যাপক প্রস্তুতি আছে। কারণ উত্তর ও পূর্বাঞ্চলীয় বন্যার পানি চাঁদপুর জেলা দিয়ে নামবে। আমাদের অবকাঠামোগত ক্ষতি হওয়ার আশংকা না থাকলেও নিজেদের জান মাল নিরাপত্তা রক্ষা করতে হবে। তাই সবাইকে সচেতন ও প্রস্তুত থাকতে হবে। মতলব উত্তর উপজেলা ঘিরে যে বেরীবাঁধ রয়েছে সেটা বন্যা হলে ঝুঁকিতে থাকতে পারে। সেদিকে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। নজরদারি করার জন্য ভলান্টিয়ার টিম গঠনের জন্য উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউএনও’কে নির্দেশনা দেন ডিসি।

তিনি আরও বলেন, আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে উন্নত দেশ। এখন গড় আয় ১৯৫০ ডলার, আর আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে গড় আয় হবে ১২ হাজার ৫০০ ডলার। এই স্বপ্ন পুরনে কাজ করছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উন্নত দেশ গড়তে যা যা উন্নয়ন প্রয়োজন তা বাস্তবায়নে তিনি কাজ করছেন। তাই আমাদের দায়িত্ব মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পাশে থাকা, তাকে সহযোগিতা করা। সেই লক্ষ্যে সকলকে কাজ করতে হবে।

পদ্মা সেতু উদ্বোধন নিয়ে বলেন, একটি ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেওয়া হচ্ছে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মাধ্যমে। কারন পদ্মা সেতু নির্মাণ নিয়ে অনেক অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। এই ষড়যন্ত্র রুখে দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন হয়েছে। আগামী ২৫ জুন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। পদ্মা সেতু উদ্বোধন কেন্দ্র করে আমরা চাঁদপুরে ব্যাপক আকারে একটি অনুষ্ঠান করবো সকলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে। আমি আশা করি মতলব উত্তরেও অনুষ্ঠান হবে।

নবাগত জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান আরও বলেন, শিক্ষা ক্ষেত্রেও সরকার যথেষ্ট উন্নয়ন করেছে। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অত্যাধুনিক ভবন হয়েছে। লেখাপড়ার মান বৃষ্টি হয়েছে। আরও বৃদ্ধি করতে অভিভাবকদের আরও সচেতন হতে হবে। মাদক থেকে যাতে শিক্ষার্থীরা সুরক্ষিত থাকে সে ব্যাপারেও সবাইকে সচেতন হতে হবে। তিনি উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানান।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশরাফুল হাসানের সভাপতিত্বে ও সহকারী শিক্ষা অফিসার মোঃ মাহফুজ মিয়ার সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন, মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ কুদ্দুস, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন খান সুফল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহিনা আক্তার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ হেদায়েত উল্লাহ, মতলব উত্তর থানার ওসি মুহাম্মদ শাহজাহান কামাল, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোজাম্মেল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহজাহান প্রধান, গজরা ইউপি চেয়ারম্যান শহীদ উল্লা প্রধান, ফতেপুর পশ্চিম ইউপি চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ, মতলব উত্তর প্রেসক্লাবের সভাপতি বোরহান উদ্দিন ডালিম, মতলব উত্তর উপজেলা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক জাকির হোসেন বাদশা, ষাটনল ইউপি চেয়ারম্যান ফেরদৌস আলম সরকার, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আনিছুর রহমান তপু প্রমুখ।

সভায় উন্মুক্ত আলোচনায় উপস্থিত জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও সুধীজনদের মতামত শোনেন এবং পরবর্তীতে করনীয় বিষয় নিয়ে পর্যালোচনা করেন জেলা প্রশাসক। সভা শুরু হওয়ার আগে জেলা প্রশাসককে ফুলেল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়।

ফম/এমএমএ/আরাফাত/

আরাফাত আল-আমিন | ফোকাস মোহনা.কম