হাসপাতালের সেবার মান আরও উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাবে : মাহবুবুর রহমান

চাঁদপুর : অ্যাকটিভ সিটিজেন গ্রুপ (এসিজি)-এর আয়োজনে এবং সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) চাঁদপুরের সহযোগিতায় ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে অ্যাকটিভ সিটিজেন গ্রুপ (এসিজি)-এর এডভোকেসি মিটিং হাসপাতালের হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়।

সনাকের সাবেক সভাপতি ও সদস্য কাজী শাহাদাতের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ একেএম মাহবুবুর রহমান। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সনাকের সহ-সভাপতি ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়া।

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, সকলের সমন্বিত প্রচেষ্টায় হাসপাতালের সেবার মান আরও উত্তরোক্তর বৃদ্ধি পাবে। আজকে অ্যাকটিভ সিটিজেন গ্রুপ (এসিজি) যে সমস্যাগুলো তুলে ধরেছে তা বাস্তব এবং যৌক্তিক।

তিনি বলেন, অনেকেই অভিযোগ করেছে হাসপাতালে সুপেয় পানির ব্যবস্থা নাই। হাসপাতালের সুপেয় পানির ব্যবস্থা রয়েছে। হয়তোবা তা বাথরুমের পাশে থাকায় অনেকেই তা ব্যবহার করতে চান না। তাই আমরা চিন্তা করেছি হাসপাতালের পাশে কোথাও উন্মুক্ত স্থানে আলাদাভাবে সুপেয় পানির লাইন দিয়ে দিবো। প্রতিটা প্রতিষ্টানেরই একটা সীমাবদ্ধতা রয়েছে। যেমনটা রয়েছে এই হাসপাতালে। এই হাসপাতালটি ২৫০ শয্যার হলেও সকল সুযোগ সুবিধা আসে ১০০ শয্যার। প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৪০০জন রোগী এই হাসপাতালে ভর্তি থাকে। তিনি বলেন, হাসপাতালের অর্ন্তনিহিত অবস্থা না বুঝে কাজ করলে আমাদের উপর অবিচার হয়ে যাবে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সেবা প্রদানে খুবই আন্তরিক। হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স এমনকি সকল পর্যায়ের কর্মীবৃন্দ হাসপাতালের সেবার মান বৃদ্ধিতে অক্লাস্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। অনেক সময় দেখা যায়, রোগীরা ও রোগীদের সাথে আসা লোকজন নার্স ও আয়াদের সাথে নূন্যতম ভালো ব্যবহার করে না। তুচ্ছ তাচ্ছিল্যভাবে ব্যবহার করে।

তিনি আরও বলেন, হাসপাতালের প্রবেশ মুখে যানজট থাকার কারণে এম্বুলেন্স ঢুকতে সমস্যা হয়। হাসপাতালে অত্যাধুনিক সেবা রয়েছে। আপনারা দালালের খপ্পরে পড়ে প্রতারিত হবেন না। তিনি সেবা গ্রহিতাদের বাথরুম ব্যবহার ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান। হাসপাতালের সেবার মান বৃদ্ধি করার জন্য কর্তৃপক্ষের পাশাপাশি সাধারণ জনগণও সহযোগিতা করতে হবে। হাসপাতালের ওয়ানস্টপ সার্ভিস সেবা চালুর প্রক্রিয়া চলছে। আপনারা যেমনিভাবে হাসপাতালের সমস্যাগুলো তুলে ধরেছেন তেমনি করে হাসপাতালের সীমাবদ্ধতা ও সেবার মানও তুলে ধরবেন এই প্রত্যাশা করছি। তিনি আরও বলেন, নভেম্বর ২০২২ মাস পুরো মাস ধরে হাসপাতালটিকে দালালমুক্ত করার জন্য কাজ করবো। এক্ষেত্রে সনাকের অ্যাকটিভ সিটিজেন গ্রুপ ও ইয়েস গ্রুপকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করার আহ্বান জানান। তিনি এধরনের এডভোকেসি মিটিং আয়োজন করার জন্য অ্যাকটিভ সিটিজেন গ্রুপকে ও সনাক-টিআইবিকে ধন্যবাদ জানান।

সভাপতির বক্তব্যে সনাকের সাবেক সভাপতি ও সদস্য কাজী শাহাদাত বলেন, একসময় হাসপাতালের অনিয়ম নিয়ে আমরা বেশ সোচ্চার ছিলাম। হাসপাতালের অনিয়মের উপর সিরিজ নিউজ করে চাঁদপুরের ২জন সাংবাদিক ৩বার টিআইবি কর্তৃক জাতীয়ভাবে পুরস্কৃত হয়েছে। এখন আর সেই প্রেক্ষাপট নেই। এখন হাসপাতালের সেবার মানের অনেক উন্নয়ন হয়েছে। কয়েকদিন আগে আমি পুরো হাসপাতালটি ঘুরে দেখেছি। হাসপাতালের যে কি অভিনব পরিবর্তন এসেছে কেহ চোখে না দেখলে তা বুঝতে পারবে না।

তিনি বলেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের যুগান্তকারী পদক্ষেপ হলো ওয়ানস্টপ সার্ভিস সেবা চালু করা ও মাসব্যাপী দালালের দৌরাত্মরোধে উদ্যোগ গ্রহণ করা। আশা করি এব্যাপারে অ্যাকটিভ সিটিজেন গ্রুপ সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে। সনাক-চাঁদপুর হাসপাতালের অনিয়মের তথ্যগুলোর পাশাপাশি ভালো কাজগুলোর চিত্রও তুলে ধরে। তিনি হাসপাতালের সেবাকে রাজনীতিকরণ না করার আহ্বান জানান। আমরা লক্ষ্য করছি হাসপাতালের সেবার মানে বেশ কিছু ইতিবাচক পরিবর্তন এসেছে। তিনি বলেন, রোগীর সাথে আসা অতিরিক্ত লোকজনের কারণে হাসপাতালে জনাকীর্ণ পরিবেশের সৃষ্টি হয়। এই অতিরিক্ত লোকজনের নিয়ন্ত্রন রুখতে আনসার বা আউসোর্সিং থেকে জনবল নিয়োগের আহ্বান জানান তিনি। অনেকেই হাসপাতালের সেবা পেয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে। কাজ করলে সমালোচনা হবেই। তাই বলে সেবার মানের বিঘ্ন ঘটানো যাবে না। তিনি সভায় উপস্থিত হওয়ার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

টিআইবি’র এরিয়া কো-অর্ডিনেটর মোঃ মাসুদ রানার সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডাঃ সাজেদা পলিন, ডাঃ গোলাম কাউসার হিমেল, বিএমএ’র সাধারণ সম্পাদক ডাঃ মাহমুদুননবী মাসুম, সিনিয়র স্টাফ নার্স আনোয়ারা বেগম। এডভোকেসি সভার পূর্বে সকাল ১০টায় কমিউিনিটি অ্যাকশন মিটিং থেকে প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত উপস্থাপন করেন ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতাল কেন্দ্রিক অ্যাকটিভ সিটিজেন গ্রুপের সমন্বয়ক মাইনুল ইসলাম মানিক।

সকাল ১০টায় ১২৫নং কেজি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতাল কেন্দ্রিক কমিউিনিটি অ্যাকশন মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সেবা গ্রহিতারা হাসপাতালের সেবার মানোন্নয়নে বেশ কিছু সুপারিশ ও হাসপাতালের বেশ কিছু সমস্যা তুলে ধরেন। এডভোকেসি সভায় অ্যাকটিভ সিটিজেন গ্রুপের সদস্যবৃন্দ, ইয়েস গ্রুপের সদস্যবৃন্দ ও হাসপাতালের কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ উপন্থিত ছিলেন।

ফম/এমএমএ/

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি | ফোকাস মোহনা.কম