হাজীগঞ্জে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বড়কুল পূর্ব ইউনিয়ন আ’লীগের সম্মেলন

হাজীগঞ্জ: হাজীগঞ্জে আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞাকে অমান্য করে বড়কুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার ৬নং বড়কূল পূর্ব ইউনিয়ন সম্মেলনে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরেও ওই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

জানা যায়, বিজ্ঞ হাজীগঞ্জ সহকারী জজ আদালত চাঁদপুর গত ২৫ নভেম্বর হাজীগঞ্জের ৬নং বড়কূল পূর্ব ইউনিয়নের সোনাইমুড়ী গ্রামের মৃত আ. লতিফ এর ছেলে উক্ত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মো. আহসান হাবীব বাদী হয়ে চলমান ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের প্রস্ততি কমিটির ৬ নেতাকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ২৭৪/১৯।

উক্ত মামলায় অভিযুক্তরা হচ্ছেন হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির প্রধান সমন্বয়ক চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মো. ইউসুফ গাজী, হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব হেলাল উদ্দিন মিয়াজী, সাধারণ সম্পাদক গাজী মো. মাঈনুদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হারুনুর রশিদ মুন্সী, ৬নং বড়কূল পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মফিজুল ইসলাম ও সাধারন সম্পাদক কবির হোসেন মিয়াজী।

অভিযোগে উল্লেখ করেন, গত ১৬ জুন জেলা আওয়ামী লীগের সভায় সিদ্ধান্ত মোতাবেক যে নিয়ম বলা হয়েছে তা না মেনে হঠাৎ করে ২৮ নভেম্বর ৬নং বড়কূল পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের তারিখ নির্ধারন করা হয়। নিয়ম অমান্য করে এজেহারভূক্ত ২ ও ৩ নং আসামী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উক্ত সম্মেলনের কাউন্সিলরদের ভোটার তালিকা ছায়ালিপি নেতৃবৃন্দের মাঝে বিতরণ করেননি। আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের ৪০নং অনুচ্ছেদের ঘ বিধি মোতাবেক ওয়ার্ড থেকে ১৯জন, কো-অপশনকৃত ১৫ জন নিয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিল গঠিত হবে। কিন্তু উক্ত ইউনিয়নের ভোটার তালিকা কাউন্সিলের তিন দিন পূর্বে সকল কাউন্সিলরদের বরাবর প্রেরণ করার কথা থাকলেও তা না করে আদালতের নিষেধাজ্ঞা পাওয়ার পরেও এজেহারভূক্ত আসামীরা তড়িগড়ি করে ২৮ নভেম্বর ৬নং বড়কূল পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলন তারিখ ঘোষণা করে। যা আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞাকে অমান্য করে অবৈধ কমিটি গঠনের শামীল বলে তৃণমূল নেতাকর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ।

অভিযোগ অনুযায়ী দেওয়ানী কার্যবিধি ৩৯ নিয়মে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা হিসাবে ইতিপূর্বে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন স্থগিত করা হয়। বাদীপক্ষ আহসান হাবিব একজন বৈধ প্রার্থী হওয়া সত্বেও নির্বাচনের আগদিন পর্যন্ত ভোটার তালিকা না পাওয়ায় ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করার সুযোগ বাবে না। তাই সুষ্ঠ নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচন স্থগিত করা ইইল।

কিন্তু এ নিষেধাজ্ঞা পেয়েও অভিযুক্তরা জোরপূর্বক বৃহস্পতিবার সকালে ৬নং বড়কূল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন সম্পন্ন করে। নির্বাচনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে আবু তাহের ও সাধারণ সম্পাদক পদে কবির হোসেন মিয়াজী নির্বাচিত হয়।

এ বিষয়ে ৬নং বড়কূল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী ও উক্ত মামলার বাদী মো. আহসান হাবিব বলেন, ভোটার তালিকা প্রকাশ না করে দায়সাড়া নির্বাচন প্র¯ুÍতি নিচ্ছে যেনে আমি গত ২৪ নভেম্বর একাধীকবার আওয়ামী লীগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করি। কিন্তু অপরাপর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের জয়ী করার মোহে এ নাটকীয় নির্বাচন সম্পন্ন করেছে যা আমি একজন প্রার্থী হিসাবে বঞ্চিত হয়েছি। তাই আমি পুনরায় ৬নং বড়কূল পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ভোটার তালিকা হালনাগাদ করে পুনরায় সম্মেলনের দাবি জানাই।

চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির প্রধান সমন্বয়ক আলহাজ্ব ইউসুফ গাজী বলেন, নিষেধাজ্ঞার খবর শুনেছি কিন্তু বর্তমানে ঢাকায় আছি, সে কারনে বিষয়টি আমার নজরে আসেনি। বাকি কার্যক্রম সম্পর্কে কোন প্রকার অবগত নেই বলে দাবি করেন এ নেতা।

তিনি আরো বলেন, আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সম্মেলন সম্পন্ন করা ঠিক হয়নি।

হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. আবদুর রশিদ বলেন, আমরা আদালতের নিষেধাজ্ঞার কপি হাতে পাওয়ার পূর্বেই নির্বাচন কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে।

ফম/এমএমএ/

মহিউদ্দিন আল-আজাদ | ফোকাস মোহনা.কম