লবন গুজব: চাঁদপুরে ১২ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে অর্থদন্ড

চাঁদপুর: বাজারে দ্রব্যমূল্য সহনশীল রাখার লক্ষ্যে চাঁদপুর জেলার ৮ উপজেলায় ভ্রাম্যমান অভিযান পরিচালনা করে প্রশাসন। এর মধ্যে চাঁদপুর শহরের ৩ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, মতলব দক্ষিণে ৩, হাজীগঞ্জ ৩ ও ফরিদগঞ্জে ৩ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ ১২টি প্রতিষ্ঠানকে পৃথক ভ্রাম্যমান আদালত জরিমানা করেন এবু মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেন।

মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) সকাল থেকে রাত পর্যন্ত লবনের মূল্য বৃদ্ধি গুজব প্রতিরোধে এবং অন্যান্য দ্রব্য মূল্য নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে
চাঁদপুর শহরের নতুন বাজার, বিপনীবাগ বাজার, পাল বাজার, হাজীগঞ্জ বাজার, মতলব দক্ষিণের মাষ্টার বাজার, ফরিদগঞ্জের রূপসা বাজারে এসব ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়।

হাজীগঞ্জ বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী অফিসার বৈশাখী বড়ুয়া। তিনি দুই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ৯ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করেন।

মতলব দক্ষিণ উপজেলার মাষ্টার বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নুশরাত শারমীন। তিনি ৩জন ব্যবসায়ীকে অর্থদন্ড প্রদান করেন।
ফরিদগঞ্জ উপজেলার রূপসা বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার ভূমি মমতা আফরিন। তিনি ৩ ব্যবসায়ীকে ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করেন।

চাঁদপুর শহরে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সামিউল ইসলাম ও অমিত সাহা। তারা ঘোষপাড়া, কুমিল্লা রোড ও বিপনীবাগ বাজারে ৩ ব্যবসায়ীকে ১৪ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

অপরদিকে লবন নিয়ে অতিমাত্রায় গুজব ছড়ানোর কারণে জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান কান নিজেই বাজার মনিটরিং করেন। তিনি শহরের বিপনীবাগ বাজারে বিভিন্ন দোকানে লবনের মূল্য দেখেন এবং ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে দেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শহরের ট্রাক রোডের কয়েকটি দোকান ঘুরে দেখাগেছে কোন দোকানেই ভোজ্য লবন নেই। মুহুর্তের মধ্যে সব দোকানের লবন বিক্রি হয়েগেছে। কোন কোন ব্যবসায়ী সন্ধ্যার পরে আবারও দোকানে নতুন করে লবন এনেছেন। তবে রাতে ওইসব লবন আর বিক্রি করা সম্ভব হয়নি। তবে কোন কোন ব্যবসায়ী লবনের প্যাকেটের মূল্যের চাইতে বেশি দামে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে।

ফম/এমএমএ/

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম