লবন ইলিশের কেজি ৮০০টাকা

ছবি: ফোকাস মোহনা.কম।

চাঁদপুর : দেশের অন্যতম মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র চাঁদপুর শহরের বড় স্টেশন মাছঘাটে ইলিশ ও অন্যান্য প্রজাতির মাছের সাথে এখন কাটা লবন ইলিশ বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি লবন ইলিশ খুচরা বিক্রি হচ্ছে ৮০০টাকা দরে। আর ছোট সাইজের লবন ইলিশ প্রতি কেজি ৬০০টাকা। তবে লবন ইলিশের ক্রেতা জেলার বাহিরের। স্থানীয় ক্রেতাদের পছন্দ তাজা রূপালী ইলিশ।

মাছঘাটে গিয়ে দেখাগেছে, সাগর অঞ্চল থেকে আসা অধিকাংশ পচা ইলিশ এক শ্রেণীর মৌসুমী ব্যবসায়ীরা বছরের এই সময় প্রতি মণ ১২-১৫ হাজার টাকায় ক্রয় করে কেটে নোনা ইলিশে পরিণত করে। এই কাজে যুক্ত হয় স্থানীয় শতাধিক নারী ও পুরুষ শ্রমিক। কয়েকমাস মাছঘাটের স্থানীয় কিছু ঘরে সংরক্ষণ হয় স্তুপ দিয়ে এবং ড্রামের মধ্যে। এরপর বৈশাখ ও জৈষ্ঠ্য মাসে এসব লবন ইলিশ বিক্রির জন্য নিয়ে যাওয়া হয় দেশের উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে।

চাঁদপুর মাছঘাটের লবন ইলিশ বিক্রেতা মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, লবন ইলিশের স্থানীয় ক্রেতা খুবই কম। বিভিন্ন জেলা থেকে আগত ইলিশ ক্রেতারাই লবন ইলিশ ক্রয় করেন। বর্তমানে আমরা সাইজ অনুসারে ৬শ’ থেকে ৮শ’ টাকা কেজি দরে লবন ইলিশ বিক্রি করছি। তবে আমাদের এই ইলিশগুলো একটু নরম ছিল, পচা নয়।

আরেক বিক্রেতা মাহবুব আলম জানান, আমাদের লবন ইলিশগুলোর মান ভাল। কিন্তু দক্ষিণাঞ্চল থেকে একসাথে অনেক ইলিশ যখন ট্রলারে করে আসে তখন বেশ কয়েকদিন ট্রলারে মাছগুলো স্তুপ থাকে। যার কারণে চাপের মধ্যে থেকে ইলিশ পচে যায়। সেগুলোই নোনা ইলিশে পরিণত হয়।

চাঁদপুর মৎস্য ও বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী শবে বরাত জানান, এ বছর নিষেধাজ্ঞার পরে প্রচুর পরিমানে ইলিশ এসেছে। এর মধ্যে কিছু ইলিশ পচা ছিল। সেগুলো কিছু ব্যবসায়ী সংরক্ষণ করেছেন। তারা এসব পচা ও লবন দেয়া ইলিশ স্থানীয়ভাবে বিক্রি করেন এবং অনেকে বিদেশেও পাঠান।

ফম/এমএমএ/

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম