মালেয়শিয়ান স্ত্রীকে নিয়ে হেলিকপ্টারে বাড়ী ফিরলেন ফরিদগঞ্জের সুমন

ছবি: ফোকাস মোহনা.কম।

চাঁদপুর :  বিয়ের পর এই প্রথম পরিবারের সদস্যদের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে বাংলাদেশী প্রবাসী ব্যবসায়ী সুমন বেপারী মালেয়শিয়ান স্ত্রী এবং সন্তান নিয়ে হেলিকপ্টারযোগে বাড়িতে এসেছেন।

শুক্রবার (৮ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টায় সুমন দম্পতিকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলা সদরের এ আর মডেল পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে অবতরণ করেন। এর আগে সকাল ৬টায় তারা মালেশিয়ার একটি বিমানে ঢাকা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করেন তারা। সুমনের বাড়ি উপজেলার গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নের চির্কা গ্রামে।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, চির্কা গ্রামের মজিবুল হক বেপারীর ছেলে সুমন কর্মসংস্থানের জন্য ২০০৭ সালে মালেয়শিয়া যান। ৯ বছর পুর্বে তার সাথে নুর ইনা লিজা নামে মালেয়শিয়ান যুবতির সাথে পরিচয় হয়। পরিচয় থেকে প্রনয়। বর্তমানে এই দম্পত্তির ঘরে সুফিয়া সাফরিনা (৮), আরাফাত (৪) এবং আড়াই বছরের আরমান নামে তিন সন্তান রয়েছে।

পবিত্র ঈদুল আযহায় মা, বোনসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের সাথে দেখা করতে এবং ঈদ আনন্দ উপভোগ করতে স্বস্ত্রীক তিনি দেশে এসেছেন। সকালে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে নামেন। পরে একটি বেসরকারি হেলিকপ্টার যোগে ফরিদগঞ্জে আসেন।

হেলিকপ্টার থেকে নামার পর সুমনের মা ফাতেমা বেগম, বোন সালমা বেগম, হোসনেয়ারা বেগম ও নিকটাত্মীয় ফারুক পাটওয়ারীসহ পরিবারের সদস্যরা তাদের ফুল দিয়ে বরণ করেন।

সুমন বেপারী বলেন, ঈদের সময় সড়কগুলো ব্যস্ত থাকে। তাই ঝামেলা এড়াতে তিনি স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে হেলিকপ্টার যোগে বাড়ি এসেছেন।

মা ফাতেমা বেগম বলেন, আমার ছেলে সুমন এক সময় ওই দেশে অনেক কষ্ট করেছে। বর্তমানে তারা সুখেই রয়েছেন।
হেলিকপ্টার থেকে নামার পর মা ফাতেমা বেগম ছেলে, পুত্রবধু ও নাতি নাতনিদের কাছে পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।

বোন সালমা বেগম বলেন, আজ আমাদের আনন্দের দিন। আমাদের আদরের ভাই স্ত্রী সন্তানসহ আমাদের সাথে ঈদ করতে বাড়ি এসেছে।

ফম/এমএমএ/

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম