ফরিদগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় যুবক গ্রেফতার

ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর): চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত মনির হোসেনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

শুক্রবার (১০ জুন) বিকেলে ওই অষ্টম শ্রেনীতে পড়ুয়া ওই কিশোরীকে কোর্টে প্রেরণ ও ২২ ধারায় জবানবন্দী গ্রহণ করা হয়। এরপর চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে মেডিক্যাল টেস্ট করা হয়েছে।

পুলিশ ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কিশোরীর পিতা বাদী হয়ে ৯ জুন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯/১ ধারায় ফরিদগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এতে তার কন্যাকে বিয়ের প্রলোভনে ফুসলিয়ে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। অভিযুক্ত মনির হোসেন (২৬) পাশবর্তী বাড়ির মোহাম্মদ মোস্তফার ছেলে।

রূপসা (দঃ) ইউনিয়নের কাউনিয়া (পঃ) গ্রামের মনির হোসেন রমজান মাসের মাঝামাঝি সময়ে প্রবাস থেকে বাড়ি আসেন। এর কয়েক দিন পর ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে মনির হোসেনের দেখা ও কথা হয়। তারা মুঠোফোন নম্বর বিনিময় করেন। এরপর বিভিন্ন সময়ে তাদের মধ্যে কথা হতো। এর এক পর্যায়ে ৮ জুন রাতে পাশবর্তী ঈদগাহ মাঠের পাশের মক্তব ঘরে ওই ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

এদিকে, পুলিশি হেফাজতে থাকা অবস্থায় ধর্ষণের শিকার শিক্ষার্থী দাবি করেন, তাকে ভিন্ন দুই দিনে দুই বার ধর্ষণ করা হয়েছে। অন্যদিকে অভিযুক্ত মনির হোসেন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ওর সঙ্গে কোনো দিন রাতে কথা হয়নি ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটেনি। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ৪-৫ দিন দিনের বেলায় কথা হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মোর্শেদ আলম পাটোয়ারী গনমাধ্যমকে জানান, ৮ জুন রাতে ওই কিশোরীর পিতা জানিয়েছেন ওইদিন সন্ধ্যার পর হতে তার মেয়েকে খুঁজে পাচ্ছেন না। কারো সাথে পালিয়েছে না কোনো আত্মীয়ের বাড়িতে গেছে তা তিনি জানেন না। তবে অভিযুক্ত মনিরের সাথে তার মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে বলে জানান। পরদিন সকালে জানতে পারেন, তার মেয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে।

ফরিদগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শহীদ হোসেন বলেন, ধর্ষণে অভিযুক্তকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে কিশোরীর পিতা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। ঘটনার শিকার কিশোরী পুলিশি হেফাজতে নিয়ে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
ফম/এমএমএ/

নিউজ ডেস্ক | ফোকাস মোহনা.কম