নানা আয়োজনে চাঁদপুরে ইলিশ উৎসবের তৃতীয় দিন

চাঁদপুর: জাতীয় সম্পদ ইলিশ রক্ষা আন্দোলনের অংশ হিসেবে ‘জাটকা এবং ইলিশের পাশে আমরা আছি প্রতিটি নিঃশ্বাসে’ এ স্লোগানে চতুরঙ্গ সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনে এ ১৪ তম ইলিশ উৎসব চাঁদপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে অব্যাহত।

রবিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) ছিল ইলিশ উৎসবের তৃতীয় দিন। এ দিন বিকেল ৪ টায় সেরা গানবাজদের চুড়ান্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন পুনম মিত্র, সাধনক সরকার। সঞ্চালনায় ছিলেন ইলিশ উৎসবের রূপকার হারুন আল রশিদ। বিচারকদের বিবেচনায় বিজয়ী ৫ জন হয়েছেন সাবিনা নামরিন মেধা, কাজী কাবিশা, অংকিতা দে, সুচিত্রা রানী দাস ও লিলিমা দেবনাথ।

প্রতিভা সাংস্কৃতিক সংগঠনের পরিবেশনায় নৃত্যানুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। ফারাবী জুয়েলের সঞ্চালনায় নৃত্য পরিবেশন করেন খুশিন, সোহানা, ইয়াসমিন, বৈশাখী, রিদয়, শাওন ও জুয়েলসহ শিল্পীরা। পরে চতুরঙ্গ সাংস্কৃতিক সংগঠনের শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। সংগীত পরিবেশন করে মামুন, এম এইচ বাতেন, মুন্না ঘোষ।

অর্নব আব্বাস ঢাকা কে শুভেচ্ছা স্মারক ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। পরে তিনি সংগীত পরিবেশন করেন। অর্নব আব্বাসের সংগীতের পর নারায়নগঞ্জ হাওয়াইয়ান গীটার পরিষদের মনোঙ্গ গীটারে সূরের র্ম্চূনা বাজানো হয়। গীটার বাজিয়েছেন অংকন রানা, আব্দুর রউফ, শরিফুর রহামান জুয়েল, অ্যাডঃ শ্রাবনী দত্ত জয়া ও সফিউল্লাহ খোকন। কোলকাতার অতিথি শিল্পী পুনম মিত্র ও মাদারীপুরের শিল্পী সাধনা সরকার সংগীত পরিবেশন করে। এর মাঝেই রুমা সরকার ও শাওন সাথি মজুমদারের সঞ্চালনায় নৃত্যাঙ্গনের শিল্পীরা নৃত্য পরিবেশন করে কিংবদন্তি দে লগ্ন, অংকিতা রায় দীপা, রাত্রি কর্মকার, হুমাইয়ারা অথৈ, রাজ নন্দিনী, অন্তরা ও তামান্নাসহ শিল্পীরা।

একই সাথে মরন্নোত্তর সম্মাননা চতুরঙ্গের সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মাসুদুর রহমান শিপু কে। তাছাড়া সম্মাননা স্মারক দেয়া হয় নারায়ণগঞ্জের সংস্কৃতিজন ভবানী শংকর রায়, গাজীপুরের সংস্কৃতিজন শামীমা ফেরদৌসী ও মাদারীপুর সংস্কৃতিজন সাধনা সরকারকে।
ফম/এমএমএ/

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম