দেশের ৬০ শতাংশ শিশু সিসা বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত

ছবি: সংগ্রহীত।

দেশের ৬০ শতাংশ শিশু সিসার বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত। প্রায় তিন কোটি ৬০ লাখ শিশুর রক্তে রয়েছে উচ্চমাত্রার সিসার উপস্থিতি। যার মধ্যে এক কোটি শিশুর রক্তে ১০ মাইক্রোগ্রাম পাত ডেসিলিটারেও অধিক সিসা।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) রাজধানীর স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পিওর আর্থ বাংলাদেশ ও বায়ুমণ্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্রের (ক্যাপস) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ‘পিওর আর্থ শর্টস : ফিল্মস ফর্ম দ্য ফিল্ড’ শীর্ষক স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রামাণ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শনীতে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়।

সিসাদূষণ রোধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে পিওর আর্থ বাংলাদেশ নির্মিত প্রামাণ্যচিত্রে বলা হয়, ‘সিসা বিষক্রিয়ায় মৃত্যুহারের দিক থেকে বিশ্বে চতুর্থ স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। সিসাদূষণের কারণে প্রতিবছর ৩১ হাজার মানুষের মৃত্যু ঘটে, যা দেশের মোট মৃত্যুর ৩ দশমিক ৬ শতাংশ। দূষণের ফলে যে পরিমাণ উৎপাদনশীলতা হ্রাস পায় তাতে বার্ষিক ১৬০ কোটি মার্কিন ডলারের ক্ষতি হয়, যা দেশের পোশাক খাত থেকে আয়কৃত অর্থের প্রায় অর্ধেক।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইউনিসেফের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ প্রিসসিলা অবিল বলেন, সিসা শক্তিশালী স্নায়বিক বিষ। এটি মানুষের মস্তিষ্কে, বিশেষত শিশুদের মস্তিষ্কে অপূরণীয় ক্ষতি করে। সারা জীবনের জন্য তাদের স্নায়বিক, মানসিক ও শারীরিক প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়তে হয়।

প্রিসসিলা আরো বলেন, সিসা সম্পূর্ণ পরিবেশকেই আক্রান্ত করে। শ্বাস-প্রশ্বাস, খাদ্য, পানীয় ও ত্বকের মাধ্যমে এটি আমাদের দেহে প্রবেশ করছে। সুতরাং সিসাদূষণ প্রতিরোধে আইন প্রণেতাদের সর্বোচ্চ কঠোর হতে হবে। সামাজিক পর্যায়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে।

প্রদর্শনীতে বাংলাদেশ পরিবেশ অধিদপ্তরের সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক কাজী সারওয়ার ইমতিয়াজ হাশমি বলেন, সিসাদূষণ প্রতিরোধে সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে ঘরে ঘরে। প্রত্যেক পিতা-মাতাকে জানতে হবে, সিসা তার শিশুর জন্য কতটা ভয়ংকর। সিসাদূষণ রোধে পরিবেশ অধিদপ্তর সর্বোচ্চ সচেষ্ট ছিল। অবৈধ সিসা-এসিড ব্যাটারি রিসাইক্লিং কারখানাগুলোকে প্রতিরোধ করা হয়েছে।

ক্যাপসের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আহমদ কামরুজ্জামানের সভাপতিত্বে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনীতে বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন, স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের প্রাতিষ্ঠানিক উপদেষ্টা অধ্যাপক গুলশান আরা লতিফা, পরিবেশ আইনজীবী অ্যাডভোকেট মারুফা গুলশান আরা, বাংলাদেশ ক্লাইমেট জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি কাওসার রহমান।-খবর কালের কন্ঠ অনলাইন।

ফম/এমএমএ/

ফোকাস মোহনা.কম