ঢাকাস্থ চাঁদপুর জেলা সাংবাদিক ফোরামের অভিষেক ও বৃত্তি প্রদান

ছবি: সংগ্রহীত।

ঢাকাস্থ চাঁদপুর জেলা সাংবাদিক ফোরামের অভিষেক ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) রাতে ঢাকা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম।

সংগঠনের সভাপতি মিজান মালিকের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক রাশেদ শাহরিয়ার পলাশ এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, চ্যানেল আই’র বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ, চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য নুরুল আমীন রুহুল, আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন, ভূমি সচিব মাকসুদুর রহমান পাটওয়ারী, অ্যাডভোকেট নূরজাহান বেগম মুক্তা, এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর পরিচালক ড. শাহাদাত হোসেন, জাতীয়ৃ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসাইন, কৃষি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলী হোসেন প্রধানীয়া, নির্বাচন কমিশনের সচিব আবদুল বাতেন, পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা, সাবেক পরিকল্পনা কমিশনের সচিব হাবিবুল্লাহ মজুমদার।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাইফুল আলম বলেন, আমি বিশ্বাস করি ঐক্যের মধ্যেই শক্তি নিহিত। ঐক্যের শক্তিকে যদি আমরা উন্নয়নের ধারায় প্রবাহিত করতে পারি, মানুষের কল্যাণে ব্যবহার করতে পারি, দেশ মাটি মানুষের অগ্রযাত্রার জন্য নিহিত করতে পারি তাহলে সেটিই হবে মানুষ হিসেবে আমাদের বড় কাজ।

তিনি আরও বলেন, একটা সময় ছিল যখন বলা হতো আমি নিরপেক্ষ। সেই শব্দ এখন কিন্তু আর ব্যবহৃত হয় না। এখন আমরা বলি নিরপেক্ষতা বলে কিছু নেই। আমরা অবশ্যই পক্ষাবলম্বন করি। সেই পক্ষটি হবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে, আমরা অবশ্যই একটি পক্ষাবলম্বন করি সেটি মিথ্যের বিপরীতে সত্যের পক্ষে। আমরা অবশ্যই একটি পক্ষাবলম্বন করি সেটি হল সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে, সহিষ্ণুতার পক্ষে, সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে। সাংবাদিক হিসেবে শুধু সংবাদ প্রকাশের মধ্যেই আমাদের সীমাবদ্ধ থাকার কোনো যৌক্তিকতা নেই। দেশ, মাটি ও মানুষের প্রতি আমাদের একটা দায়বদ্ধতা আছে, ঋণ আছে। সেই ঋণ শোধ করার একটি বড় প্রয়াস হল এ দেশের উন্নয়নে, মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে আমাদের ভূমিকা রাখা।

চ্যানেল আই’র বার্তা প্রধান এবং গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ বলেন, চাঁদপুর ইলিশের শহর- এটি বলেই আমরা থেমে গেছি। বিশ্বব্যাপী ইলিশের যে ব্র্যান্ডিং দরকার ছিল সেটি আমরা করতে পারিনি। চাঁদপুর ধনী হতে পারে পর্যটনে। ইলিশের ভেসেলে কিভাবে ইলিশ ধরা হয় সেটি দেখার জন্য পর্যটকদের আকর্ষণ করা গেলেও অনেক উন্নয়ন হতো।

চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য নুরুল আমীন রুহুল বলেন, গুলি, বন্দুক টিয়ার শেল, বোমার চেয়েও শক্তিশালী হল কলম। সাংবাদিকরা সমাজের অনেক চিত্র তুলে আনেন যা প্রশাসন থেকে শুরু করে আমলা-নেতা সবাইকে নাড়িয়ে দেয়। সমাজের পরিবর্তনে তাই কলম হাতিয়ার।

ফম/এমএমএ/

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম