ট্রেন দূর্ঘটনা: হবিগঞ্জের ৯জন নিহত

হবিগঞ্জ:  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় যাত্রীবাহী দুই ট্রেনের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১৬ জনের মধ্যে হবিগঞ্জের ৫ যাত্রীর পরিচয় পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) সকালে নিহতের পরিবারের মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া যায়। এর আগে সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনের ক্রসিংয়ে আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ও তূর্ণা নিশীথা ট্রেনের মধ্যে ওই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি আলী মোঃ ইউসুফ(৩৫), বানিয়াচং উপজেলার মুরাদপুর গ্রামের আইয়ূব হোসেনের ছেলে আল-আমিন (৩৫), চুনারুঘাট উপজেলার উলুকান্দি গ্রামের ফটিক মিয়া তালুকদারের ছেলে রুবেল মিয়া তালুকদার (২২), পীরেরগাঁও গ্রামের সুজন মিয়া (২৪) ও তার সম্পর্কে খালা কুলসুমা বেগম (৪৫)। নিহতরা সবাই উদয়ন ট্রেনের যাত্রী ছিলেন।

এদিকে সকালে নিহতের বাড়িতে খোজ নিয়ে জানা যায়, আত্বীস্বজনদের কান্নায় এলাকার বাতাস ভারি হয়ে ওঠছে। নিহত রুবেল একটি কোম্পানীতে চাকুরি করতো। পারিবারিক কাজে উদয়ন ট্রেনে করে চট্রগ্রাম যাচ্ছিল। নিহত সুজন লেখাপড়া করতো। তার খালার সাথে বেড়ানোর জন্য চট্রগ্রাম যাচ্ছিল।

মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাস্টার জাকির হোসেন চৌধুরী বলেন, সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনটি এক নম্বর লাইনে ঢুকছিল। এ সময় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী তুর্ণা নিশীথাকে আউটারে থাকার সিগনাল দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই সিগনাল অমান্য করে মূল লাইনে ঢুকে পড়ার কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

ফম/এমএমএ/

আজিজুল ইসলাম সজীব | ফোকাস মোহনা.কম