জাগো বাহে কোনঠে সবায়

—যুবক অনার্য
এক পা দু’পা ক’রে কখন যে শুরু হয়েছিলো
মাঘ নিশীথে যখন চন্দ্র জোছনা হারায়
হাবিল কাবিল দাঁড়িয়ে থাকে ঠাঁয়
শুরু হয়েছিলো তবে ইতিহাসহীন –
প্রাগৈতিহাসিক কোনোকালে
যেরকম ভিখু পাঁচিকে রাখে অধিকার ক’রে
জানা নেই, তবে শুরু হয়েছিলো আদম আর আজাজিল থেকে- হয়তো বা রামের  সঙ্গে রাবণের  কানামাছি খেলবার পরে,
বউচিঁ খেলার মতো ক’রে দ্রৌপদি’র  আঁচল আর ভাঁজ টেনে ছিড়ে
শুরু হয়েছিলো যখন  ইস্টইন্ডিয়া কোম্পানির সাম্রাজ্যবাদী ধোঁয়া আকাশে ওড়ে
ভারতবিধৌত অঞ্চল জুড়ে
আরও আরও কতো শত মাইল খুঁড়ে খুঁড়ে
শুরু হয়েছিলো এ বাংলারও বুকে
একদিন শুরু হয়েছিলো
একদিন নূরলদীন তাই শপথ করেছিলো
হালের বলদ তার নিয়ে গেলো লোল জিভ
বিলেতি বামন
নূরলদীন সঙ্গে বাবা তার
লাঙল কাঁধে তুলে নিলো
হ্যাঁ হ্যাঁ এরকমই  হয়েছিলো বাংলার উঠোনে ঘরে এরকমই হয়, হয়ে আসছে
প্রাগৈতিহাসিক কোল জুড়ে
স্মৃতিরা দুধ হয়ে জোছনার মতো ঝরে পড়ে
নূরলদীনের শরীরে রক্তের বিজলী চমকায়
প্রতিবার নূরলদীন বলদ হারায়
প্রতিবার নূরলদীন জেগে উঠে
গ্রামকে গ্রাম জাগিয়ে তোলে মানুষ জাগায়
জাগাতে দেশবাসি নূরলদীন কাল পুর্নিমায়
ফের উঠোনে দাঁড়ায় আর ডাক পাড়ে –
“জাগো, বাহে,কোনঠে সবায়”।

ফোকাস মোহনা.কম