চুরি হওয়া ৪২ মোবাইল ফোন উদ্ধার, আটক জগলু মিয়া

চাঁদপুর : চাঁদপুর শহরের রেলওয়ে হর্কাস মার্কেটের মোবাইল মেলা দোকান থেকে বিভিন্ন কোম্পানীর ৮৮টি অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল সেট চুরি করেছে চোর চক্র। চুরিকৃত মোবাইলের ৪২টি অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে ৪টি চোরাই মোবাইল ফোনসহ জগলু মিয়া (২৪) নামের একজনকে ৩ দিনের সফল অভিযান শেষে হবিগঞ্জ উপজেলার নবীগঞ্জ থানা থেকে আটক করে চাঁদপুর থানায় নিয়ে আসা হয়।

রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে চাঁদপুর সদর মডেল থানার ওসি মুহাম্মদ আবদুর রশিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেন। গত ১৬ আগষ্ট দোকানের মালিক মোরশেদ আলম বাদী হয়ে চাঁদপুর সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং-৪৪।
মামলায় ৮৮টি মোবাইল ফোনের আনুমানিক মূল্য প্রায় ১৬ লাখ টাকা উল্লেখ করা হয়।

আটক জগলু মিয়া হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ থানার পিরিজপুর গ্রামের মৃত. মোখলেস মিয়ার ছেলে।

জানা যায়, ১৫ আগষ্ট সোমবার রাতে দোকান বন্ধ হওয়ার পর থেকে সকালে দোকান খোলার আগ পর্যন্ত যে কোন সময় চোরচক্র মোবাইল মেলা দোকানের চালের টিন খুলে ৮৮টি মোবাইল সেট নিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় দোকানে থাকা সিসি ক্যামেরার তার কেটে দেয় চোর চক্র। চুরি কাজে ব্যবহ্নত কিছু মালামাল জব্দ করেছে পুলিশ। মামলা হওয়ার পর থেকে চাঁদপুর সদর মডেল থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শাহরিন হোসেন তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার করে হবিগঞ্জ উপজেলার নবীগঞ্জ থানার বিভিন্ন স্থান থেকে পরিত্যাক্ত ৩৮ টি ও আটক জগলু থেকে ৪টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশের সহায়তায় এ উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে সহায়তা করেন চাঁদপুর সদর মডেল থানার এএসআই তসলিম হোসেন।

আটক জগলু মিয়া বলেন, আমি বেসরকারী একটি গ্যাস কোম্পানিতে চাকুরী করি। আমার এক বন্ধু মোবাইল সেটগুলো রাখতে দিয়েছে।

মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শাহরিন হোসেন বলেন, তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ থেকে বিভিন্ন স্থান থেকে পরিত্যাক্ত অবস্থায় ৩৮ টি ও আটক জগলু মিয়ার কাছ থেকে ৪ টি মোবাইল ফোন সেট উদ্ধার করা হয়েছে। তবে চোর চক্রের মূল হোতাকে আমরা সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছি। উদ্ধার হওয়া মোবাইল সেটের মূল্য প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকা।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আবদুর রশিদ বলেন, ১৫ আগষ্ট রাতে দোকানের টিন খুলে ৮৮টি মোবাইল সেট নিয়ে যায় চোর চক্র। পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ স্যারের দিক নির্দেশনায় হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ থানা থেকে ৪২ টি মোবাইল সেট উদ্ধার এবং ১ জনকে আটক করা হয়েছে। বাকি মোবাইল সেট ও মূল আসামীকে আটক করতে অভিযান অব্যাহত থাকবে। আটক আসামীকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
ফম/এমএমএ/

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম