চাঁদপুর শহরে আবারও কিশোর গ্যাংয়ের অস্ত্রের মহড়া

প্রতিকী ছবি।

চাঁদপুর : চাঁদপুর জেলা সদরে ও শহরতলী এলাকায় আবারও পেরোয়া হয়ে উঠেছে কিশোর গ্যাং সদস্যরা। কখনও সিনিয়র-জুনিয়র, কখনও মাদক, কখনও মেয়ে সংক্রান্ত বিষয় ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে কিশোর গ্যাং সদস্যরা। তারা প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে রাস্তায় মহড়া দেওয়ায় আতঙ্কিত হচ্ছে পথচারী ও সাধারণ জনগন। তবে তাৎক্ষনিক চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ ব্যবস্থা নেয়ায় কোন হতাহত হয়নি।

গত দুই বছরে চাঁদপুর শহর ও শহরতলী এলাকায় কিশোর গ্যাং সদস্যদের হামলা ও দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হয়েছেন।

এদিকে শনিবার (১২ নভেম্বর) রাতে হঠাৎ চাঁদপুর শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে ও অঙ্গীকারে সামনে প্রায় ৩০ জন কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের রাস্তায় অস্ত্রের মহড়া দিতে দেখা যায়।

ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা জানায়, শহরের হাজী মহসিন রোড থেকে লিটন ও রামিমের নেতৃত্বে কিছু কিশোর হঠাৎ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিতে শুরু করে। তারা চাঁদপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে সিএনজি স্ট্যান্ড এ উচ্চ স্বরে অমিত নামের একজন কে বেরিয়ে আসতে চিৎকার করে। পরে রাস্তায় অস্ত্র ঘসতে থাকে এবং ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। স্ট্যান্ড এ অনেক লোকজন থাকলেও কেউ আহত হয় নি। তারা অনেকেই সরকার দলীয় রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছে বলেও তারা জানায়।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, অনেকদিন যাবত এই স্থানে চলছে অস্ত্রের মহড়া। গত কয়েকদিন আগে এক পথচারী কলেজ শিক্ষার্থীকে কিশোর গ্যাং সদস্যরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এছাড়া এক স্কুল শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে হাসান আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ফেলে রেখে চলে যায়। এদেরকে নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে বড় ধরনের দূর্ঘটনার সম্মূখিন হতে হবে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আবদুর রশিদ  বলেন, অস্ত্র নিয়ে কয়েকজন মহড়া দিচ্ছে খবর শুনে তাৎক্ষনিক ফোর্স পাঠিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। যারা কিশোর গ্যাংয়ের সাথে জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে। এর পূর্বেও কিশোর গ্যাংয়ের সাথে জড়িতদের আটক করে গাজীপুর শিশু সংশোধনাগারে পাঠানো হয়েছে। কিশোর গ্যাংয়ের সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। পুলিশ তৎপর রয়েছে।

ফম/এমএমএ/

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম