চাঁদপুর মাছঘাটে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে জাটকা

ছবি: ফোকাস মোহনা.কম।

চাঁদপুর: মৎস্য আইনে জাটকা আহরণ, ক্রয়-বিক্রয়, মওজুদ পরিবহন নিষিদ্ধ থাকলেও চাঁদপুর মাছঘাটে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে ইলিশের পোনা জাটকা।

সোমবার (৭ নভেম্বর) সকাল ১০টায় মাছঘাটের বেশ কয়েকটি আড়তের সামনে হাকডাক দিয়ে জাটকা বিক্রি করতে দেখাগেছে।

আড়তে কিছু সময় অপেক্ষা করে দেখোগেছে জাটকা বিক্রির জন্য আড়ৎগুলোর সামনে বস্তা থেকে বের করে স্তুপ করা হচ্ছে। আবার অনেকেই জাটকাগুলো বাছাই করে আলাদা করছেন।

চাঁদপুর মৎস্য বিভাগ থেকে জাটকা সম্পর্কে জানাগেছে, ১০ইঞ্চির নীচের সাইজের ইলিশকে জাটকা বলে গণ্য করা হয়। ১০ ইঞ্চির ওপরের সাইজের ইলিশ বিক্রিতে কোন প্রকার বাঁধা নেই। আর এসব জাটকা ইলিশ প্রতিবছর নভেম্বর মাসের ১ তারিখ থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ধরা নিষিদ্ধ। মার্চ-এপ্রিল দুই মাস পদ্মা-মেঘনাসহ অভয়াশ্রম এলাকায় যেমন জাটকা ধরা নিষিদ্ধ, ঠিক তেমনেই এই সময়ও নিষিদ্ধ। এই বিষয়ে জেলে, মৎস্য ব্যবসায়ী ও সর্বসাধারনের অবগতির জন্য মৎস্য বিভাগের পক্ষ থেকে ব্যানার সাঁটানো হয়েছে। কিন্তু কে শুনে কার কথা। প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে জাটকা।

চাঁদপুর সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. তানজিমুল ইসলাম জাটকা বিক্রি সম্পর্কে বলেন, জাটকা ধরা, পরিবহন ও বিক্রি যেন না করতে পারে এই বিষয়ে আমরা খুবই তৎপর। পরিবহন থেকে জাটকা যেন বাজারে না আসতে পারে তার জন্য আগেই সরকারি সংস্থাগুলো কাজ করছে। যাত্রীবাহী লঞ্চ, ট্রলার ও অন্যান্য নৌযান থেকেই কোস্টগার্ড, নৌ পুলিশ জাটকা আটক করছে এবং করবে। আমরা পরিকল্পনা করছি জাটকার জড়িতদের আইনের আওতায় আনার জন্য। আমাদের উচিৎ ইলিশ মাছ বড় হওয়ার সুযোগ দেয়া। কারণ ইলিশ আমাদের জাতীয় সম্পদ।
ফম/এমএমএ/

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম