চাঁদপুরে সব্জির বাজারও চড়া

চাঁদপুর: স্থানীয়ভাবে সব্জির উৎপাদন কম হওয়ার কারণে চাঁদপুরে সব্জির বাজারেও সব রকমের সব্জির মূল্য বেড়েছে। আমদানি নির্ভর হয়ে পড়েছে শহর ও গ্রামের বাজারগুলো। গ্রামের অলিতে গলিত এখন সব্জির দোকান। মুদি দোকানের সামনেই বিক্রি হয় সব্জি। এক সময় গ্রামে সব্জি উৎপাদন হলেও এখন চিত্র উল্টো। ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র কারণে চাঁদপুরে উৎপাদিত কিছু সব্জির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ। তবে অন্যান্য জেলা থেকে আমদানি সব্জি প্রচুর পরিমাণে রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় চাঁদপুর শহরের বিপনীবাগ বাজারে গিয়ে দেখাগেছে সব্জির বাজারে শীতের আগাম সকল ধরনের সব্জির পসড়া সাজিয়েছে ব্যবসায়ীরা। কোন সব্জির আমদানি কম নেই। তবে মূল্য চড়া।

ব্যবসায়ী মাসুদ মিজি, আনেয়ার মিজি ও রুবেল জানান, প্রতিকেজি পালং শাক ৪৫টাকা, পটল প্রতিকেজি ৬৫টাকা, সিম ৬৫টাকা, টমেটো ১০০ থেকে ১১০টাকা, মুলা ৫৫টাকা, বেগুন ৫০টাকা, পেপে ছোট ৪০টাকা, বড় সাইজ ৫৫টাকা। গাজর ৯৫টাকা, কুমড়া ৫০টাকা, ঢেড়স ৫৫টাকা, ধনিয়া পাতা প্রতিকেজি ২৭০টাকা, কাঁচা মরিচ ১৩০টাকা, নতুন আলু ১২৫টাকা, পুরনো আলু প্রতিকেজি ২৮টাকা, পাতা কপি বড় ৬০টাকা, ছোট পাতা কপি ৪৫টাকা, লাল শাক প্রতিকেজি ৪৫টাকা, ছোট ফুলকপি ৫০টাকা, বড় সাইজের ৭০টাকা, কাঁচা কলা প্রতি হালি ৪৫টাকা, কই প্রতিকেজি ৬০টাকা, ডাটা ৫০টাকা প্রতি মুঠি, পুঁই শাক প্রতিকেজি ৫৫টাকা, লেবু প্রতি পিস বড় ১৫টাকা, ছোট ১২টাকা।

ফম/এমএমএ/

শাহ আলম খান | ফোকাস মোহনা.কম