চাঁদপুরে মেঘনায় পানির উচ্চতা বিপৎসীমা সীমা ছুঁই ছুঁই

ছবি: ফোকাস মোহনা.কম

চাঁদপুর: সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন জেলার নদীগুলোর বন্যার পানির চাপ ধীরে ধীরে বেড়ে মেঘনা নদীতে চাপ বাড়াচ্ছে। উজানের পানি নেমে আসার কারণে ডাকাতিয়া ও মেঘনা ধনাগোদা নদীর পানিও বৃদ্ধি পাচ্ছে। মেঘনার পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে ভাঙন ঝুঁকিতে চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ। গত ২৪ ঘন্টায় চাঁদপুরের মেঘনা নদীর উচ্চতা বেড়েছে। সর্বোচ্চ উচ্চতা ৩.৮৮ সেন্টিমিটার। অর্থাৎ বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই। প্রতিদিন উচ্চতা বৃদ্ধি অব্যাহত আছে।

মঙ্গলবার (২১ জুন) রাতে পানি উন্নয়ন বোর্ড চাঁদপুরের সহকারী প্রকৌশলী মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, গত ২৪ ঘন্টায় চাঁদপুরের মেঘনা নদীর সর্বোচ্চ উচ্চতা ৩.৮৮ সেন্টিমিটার এবং সর্বনিম্ন উচ্চতা ২.৯০ সেন্টিমিটার। সোমবার সর্বোচ্চ উচ্চতা ছিলো ৩.৮৪ সেন্টিমিটার এবং সর্বনিম্ন উচ্চতা ছিলো ২.৯০ সেন্টিমিটার।

তবে চাঁদপুরে গত ২৪ ঘন্টায় বৃষ্টিপাতের পরিমান কমেছে। সকালে বৃষ্টি থাকলেও সকাল ১০টার পর থেকে বৃষ্টি কমে আসে। রাত ১১টা পর্যন্ত বৃষ্টি নামেনি শহর অঞ্চলে।

এদিকে, আজ দুপুরে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক (ডিসি) কামরুল হাসান বলেন, দেশের কিছু কিছু জেলায় বন্যা সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের এজেলায় বন্যার আশঙ্কা বা বন্যা থেকে রক্ষা পেতে এবং দুর্যোগ হলে যেন জানমালের ক্ষতি জিরোতে নামিয়ে আনতে পারি তার জন্যই আজকের এসভা। যেকোন ধরণের দুর্যোগ হলে দুই রকম অবস্থা হয়। হচ্ছে দুর্যোগ কালীন ও দুর্যোগ পরবর্তী। প্রতিটি দপ্তরের কর্মকর্তারা দুর্যোগ আসার আগেই সবরকমের প্রস্তুতি গ্রহণ করে রাখবেন। যেন দুর্যোগে কোনরকম শঙ্কা দেখা দিলেই কাজে নামা যায়। সবধরণের দুর্যোগের জন্যে আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। আমরা আশাকরি চাঁদপুরে অন্যান্য জেলার মত বন্যা হবে না।
ফম/এমএমএ/

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম