চাঁদপুরে প্রশাসনের নিষেধ অমান্য করে বাল্যবিয়ে

ছবি: সংগ্রহীত।

চাঁদপুর: বাল্য বিয়ের সংবাদ পেয়ে ৯৯৯ এর ফোনে তাৎক্ষণিক বিয়ের বাড়িতে হানা দিল পুলিশ। বাল্য বিয়ের সংবাদ নিশ্চিত হওয়ার পর চাঁদপুর সদর উপজেলার সহকারি ভূমি কর্মকর্তা (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ হেদায়েত উল্যাহ ঘটনাস্থলে গিয়ে বাল্য বিয়ে বন্ধ করার নির্দেশ দেন। কিন্তু প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করেন কনে পক্ষ।

সোমবার (৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সদর উপজেলার বাগাদী ইউনিয়নের ৩নম্বর ওয়ার্ড ঘাসিপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, চাঁদপুর সদর উপজেলার ৮ নং বাগাদী ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড ঘাসিপুর গ্রামের ইটালি প্রবাসী খোরশেদ আলমের ১৬ বছর বয়সী মেয়ে ফাহমিদা ইলমার সাথে ফরিদগঞ্জ ১০ নং গোবিন্দপুর শোভন গ্রামের মুক্তার খানের ছেলে নানীপুর খান বাড়ি মসজিদের ইমাম হাসান খানের বিয়ের বিষয় চূড়ান্ত হয়।

প্রবাসীর মেয়ের জন্ম তারিখ গোপন রেখে ঢাকা থেকে ভূয়া জন্ম নিবন্ধন তৈরি করে এনে এই বাল্যবিবাহ দেওয়ার চেষ্টা করে। পরবর্তীতে ৯৯৯ সংবাদ পেয়ে চাঁদপুর সদর মডেল থানার এএসআই কফিল উদ্দিন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে উপস্থিত হয়।
মেয়ের কাগজপত্র জটিলতা ও বাল্য বিয়ের ঘটনাটি নিশ্চিত হওয়ার পর চাঁদপুর মডেল থানা ওসি মুহাম্মদ আব্দুর রশিদকে অবহিত করলে পরবর্তীতে সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযান পরিচালনা করেন।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার এএসআই কফিল উদ্দিন জানান, ৯৯৯ এর সংবাদ পেয়ে আমি ও সংঙ্গীয় সদস্যরা ঘটনাস্থলে যাই। পরে উর্ধ্ব তনকর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করার পর এসিল্যান্ড ঘটনাস্থলে আসলে আমি চলে আসি। পরে কি হয়েছে তা জানি না।

চাঁদপুর সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. হেদায়েত উল্যাহ জানান, আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি। জানতে পেরেছি তারা আগেই বর-কনে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করেছেন। আজকে শুধুমাত্র বিয়ের খাওয়ার আয়োজন সম্পন্ন করেছেন। তবে বিয়েটি নিবন্ধন হয়নি। কারণ আমি বিয়েটি নিবন্ধন না করার জন্য চেয়ারম্যান এর সাথে যোগাযোগ করে কাজীর সাথে কথা বলার জন্য বলেছি। আর কনে পক্ষ যে জন্মসনদ দেখিয়েছে তা অনলাইন ওপেন হলেও এটি সঠিক জন্ম সনদ না। এরপরেও আমি মৌখিকভাবে বিয়ে না দেয়ার জন্য বলেছি।

এদিকে কনে পরিবার বাল্যবিবাহ না দেওয়ার অঙ্গীকার করলেও পুলিশ ও ভূমি কর্মকর্তা সেখানে থেকে যাওয়ার পর ধুমধাম ভাবে বর পক্ষের লোকজনদের খাবার শেষে বিয়ের কাজ গোপনে সম্পন্ন করেন।

তবে এই ঘটনাটি কনের সম্পর্কে খালু ওয়ারলেস বাজারের ব্যবসায়ী জাকিরের নেতৃত্বে এই বাল্যবিবাহ হয়েছে বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

ফম/এমএমএ/

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম