চাঁদপুরে নৌ পুলিশের উপর হামলা: আহত ১৫,

চাঁদপুর : চাঁদপুর সদর উপজেলার হানারচর ইউনিয়নের হরিণা ফেরিঘাট এলাকায় সোলেমান দর্জি (৪০) নামের এক জেলে আটক করেছে হরিণাঘাট নৌ ফাঁড়ি পুলিশ। এতে জেলেদের সাথে এলাকাবাসীযোগ হয়ে নৌ পুলিশের উপর হামলা করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ ফোর্স মোতায়েনসহ ২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়া হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছেন।

সোমবার (১৭ অক্টোবর) দুপুরে মেঘনায় মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানে মাঝ নদী থেকে ইলিশ মাছসহ এ জেলেকে আটক করে নৌ ফাঁড়ির পুলিশ। পরে আসামীকে ফাঁড়িতে নিয়ে আসার সময় স্থানীয় একটি মহল নৌ পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে আসামীকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে।

আহতরা হলেনঃ হরিণা পুলিশ ফাঁড়ির এসআই বাবুল বালা, ফখরুল, কন্সটেবল যোবায়ের, হানারচর ইউপি সদস্য আবুল বাশার, স্থানীয় শাহজালাল, তামিম, আলাউদ্দিন, ইসমাইল, কাউছার ও সোহাগ।

আটককৃতরা হলেনঃ সলেমান দর্জি (৩৫), সফিক হাওলাদার (৩২) ও মোঃ সোহাগ খান (২৪)।

এদিকে হরিনাঘাট নৌ পুলিশ ফাঁড়ি ঘেরাও নিয়ে স্থানীয়রা জানান, দাদনের ৫ লাখ টাকা নিয়ে ট্রলার চালক সোলেমান এলাকাতে আসার সময় তার থেকে ৫ লাখ ছিনিয়ে নেয় হরিনাঘাট নৌ পুলিশ। শুধু তাই নয়, তাকে ব্যাপক মারধরও করা হয়েছে। এরসাথে নিরপরাধ দোকানদার সোহাগসহ আরও একজনকে জেলে সাজিয়ে ফাঁড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আমরা সুষ্ঠু তদন্তসাপেক্ষে নৌ পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানাচ্ছি। পুলিশের এলোপাতাড়ি লাঠিচার্জে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে।

এ বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে আইনানুগ ব্যবস্থার কথা জানিয়েন হরিণাঘাট নৌ পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মোঃ মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, আমরা মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান পরিচালনাকালে ইলিশ মাছসহ ১ জেলেকে আটক করি। পরে তাকে ফাঁড়িতে নিয়ে আসার সময় স্থানীয় একটি মহল ফাঁড়ি ঘেরাও করে হামলা চালিয়েছে। আমরা ২ রাউন্ড গুলি ছুঁড়েছি। চাঁদপুর সদর মডেল থানা পুলিশের সহায়তায় ৫ জনকে আটক করা হয়। জেলের কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা নেয়ার কথাটি তিনি জানেন না বলে মন্তব্য করেন এই কর্মকর্তা।

ফম/এমএমএ/

ফোকাস মোহনা.কম