কৃষি উৎপদান বৃদ্ধিতে চাঁদপুরে খাল খনন হয়েছে সাড়ে ২৪ কিলোমিটার

চাঁদপুর: বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) কুমিল্লা-চাঁদপুর-ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলা সেচ এলাকা উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষে সরকারের পরিকল্পনার আলোকে চাঁদপুর জেলার ৪ উপজেলায় সাড়ে ২৪ কিলোমিটার পুরাতন খাল খনন করা হয়েছে। এতে সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়ের প্রায় সাড়ে ৪ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। সেচ সুবিধার আওতায় এসেছে প্রায় লক্ষাধিক কৃষক। আরো সাড়ে ১১ কিলোমিটার খাল খনন কাজ খুব শীগগীরই শুরু হবে।

রবিবার (১৩ নভেম্বর) দুপুরে এসব তথ্য জানান বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) চাঁদপুর কার্যালয়ের সহকারী প্রকৌশলী ইমরুল কায়েস মির্জা কিরণ।

বিএডিসি চাঁদপুর কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, ২০২১ সালের ডিসেম্বর মাস থেকে এই পর্যন্ত খাল খন হয়েছে সাড়ে ২৪ কিলোমিটার। এর মধ্যে মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়নপুর বাড়ৈগাঁও গ্রামের মাঠে সাড়ে ৮ কিলোমিটার। কচুয়া উপজেলায় বিতাড়া ইউনিয়নের জোড়া খাল সাড়ে ৩ কিলোমিটার। হাজীগঞ্জ উপজেলার বড়কুল ও পশ্চিম রাজারগাঁও গ্রামে ৭ কিলোমিটার ও শাহরাস্তি উপজেলার সূচীপাড়া দক্ষিণ ও মেহের দক্ষিণ ইউনিয়নে সাড়ে ৫ কিলোমিটার খাল খনন সম্পন্ন হয়েছে।

বিএডিসি চাঁদপুর কার্যালয়ের সহকারী প্রকৌশলী ইমরুল কায়েস মির্জা কিরণ জানান, ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে আমাদের চাঁদপুর জেলায় ৩৬ কিলোমিটার খাল খনন করার কথা ছিল। কিন্তু বর্ষা মৌসুমে পানি চলে আসার কারণে কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি। নিয়মানুসারে কাজের ওয়ার্ক অর্ডার হওয়ার পর ২০ দিনের মধ্যে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ সম্পন্ন করার কথা। কিন্তু প্রাকৃতিক পরিবেশের কারণে সঠিক সময়ে করা সম্ভব হয় না।

তিনি আরো জানান, গত বছর শুরু হওয়া কাজের মধ্যে এ বছর আমরা আরো সাড়ে ১১ কিলোমিটার খাল খনন কাজ খুব শীগগীরই শুরু করব। ঘুর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের কারণে খালে পানি বৃদ্ধি পায়। এখন পানি কমেছে। নভেম্বর মাসের শেষে অথবা ডিসেম্বর মাসের শুরুর দিকে শাহরাস্তি উপজেলার সূচীপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের রাগৈ এলাকায় ৮ কিলোমিটার এবং হাজীগঞ্জ উপজেলার গন্ধর্ব্যপুর ইউনিয়নে সাড়ে ৩ কিলোমিটার খাল খনন করব।

ফম/এমএমএ/

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | ফোকাস মোহনা.কম