করোনা থেকে মুক্তি পেতে ঈদের নামাজে বিশেষ দোয়া

করোনার সংক্রমণ আবারও বেড়ে যাওয়ায় উৎসাহ-উদ্দীপনায় কিছুটা ছেদ পড়লেও যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রামে উদযাপিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। ঈদের নামাজ আদায় শেষে সকলে দেশ-জাতির মঙ্গল কামনায় মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করেন। মোনাজাতে করোনাভাইরাসের মহামারিসহ সকল প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে সংকট মুক্তির জন্য দোয়া করা হয়।
নামাজ শেষে মহান আল্লাহর অপার অনুগ্রহ লাভের আশায় ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী পশু কোরবানি করেছেন।

রবিবার (১০ জুলাই) সকাল পৌনে ৮টায় নগরের জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদে ঈদুল আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) তত্ত্বাবধানে ঈদ জামাতে ইমামতি করেন জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদের খতিব হযরতুল আল্লামা সৈয়দ আবু তালেব মোহাম্মদ আলাউদ্দীন আল কাদেরী। একই স্থানে দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল পৌনে ৯টায়।

নামাজ আদায়ের জন্য বিভিন্ন এলাকা থেকে নানা পেশা ও বয়সের মুসল্লিরা জাতীয় মসজিদে ভিড় করেন। মন্ত্রিসভার সদস্য, সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদ, ও আইনজীবী, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ জাতীয় মসজিদে ঈদুল আজহার প্রধান জামাতে অংশ নেন।

এদিকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় ঈদ জামাত কমিটির ব্যবস্থাপনায় ঈদুল আজহার জামাত স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম মাঠে সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হয়। ইমামতি করেন বায়তুশ শরফ আদর্শ সিনিয়র কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আল্লামা ড. সাইয়েদ আবু নোমান।

ঈদের নামাজ পড়ার জন্য আতর মেখে জমিয়তুল ফালাহ মসজিদে আসেন মুসল্লীরা। খতিব এ সময় খুতবা পাঠ করেন। খুতবা পড়ার সময় কিভাবে কোরবানি করতে হবে, কোরবানির মাংস কিভাবে বিলিবন্টন করতে হবে ইত্যাদি সম্পর্কে বয়ান করেন।

এ ছাড়া বয়ানে করোনাভাইরাস ও চলমান প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে দেশবাসীকে রক্ষার জন্য মহান আল্লাহর দরবারে তিনি ফরিয়াদ জানান। দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায় শেষে আল্লাহর কাছে দেশ ও মুসলিম উম্মাহর মঙ্গল কামনায় মোনাজাত করা হয়। এরপর প্রচলিত রেওয়াজ অনুযায়ী কোলাকুলি করেন অনেকে।
ফম/এমএমএ/

নিউজ ডেস্ক | ফোকাস মোহনা.কম