ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে বন্ধ: পালিয়েছে দুই বর

রাজশাহীর তানোর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেল অষ্টম শ্রেণির দুই ছাত্রী।

ইউএনও কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ওই গ্রামের গোলাম আলীর মেয়ে শাহিনা খাতুনের (১৩) বসন্তপুর গ্রামে এবং কালাম আলীর মেয়ে জান্নাতুন ফেরদৌসের হাড়দো গ্রামেই পৃথকভাবে বিয়ে ঠিক করেন তাদের বাবা-মা।

সে মোতাবেক কনের বাড়িতে শনিবার সকাল থেকে বিয়ের আয়োজন করা হয়। ওই দুই ছাত্রী পবা উপজেলার বাগধানী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীতে পড়ালেখা করে।

বিষয়টি জানতে পেরে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাসরিন বানু দুই বিয়ে বাড়িতে হাজির হন।

ইউএনওর উপস্থিতি টের পেয়ে বর ও বিয়ে বাড়ির লোকজন পালিয়ে যায়। এ সময় দুই বিয়েই বন্ধ করে দেন ইউএনও।

এ ব্যাপারে উপজেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাসরিন বানু বলেন, একই গ্রামে দুই বাল্যবিয়ে হচ্ছে এমন গোপন খবরে অভিযান চালানো হয়। এ সময় বরসহ অন্য লোকজন পালিয়ে যায়। পরে মেয়ের বাবা-মা এই মর্মে মুচলেকা দেন যে তাদের মেয়েদের ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবেন না। পরে ইউএনও তাদের জানান, আবারও বাল্যবিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফম/এমএমএ/

নিউজ ডেস্ক | ফোকাস মোহনা.কম