আবদুল মান্নান : বোধের বারান্দায় মুখর এক ফিঙেপাখি

আশিক বিন রহিম।। দেশ বরেণ্য শিক্ষাবিদ ও প্রাবন্ধিক ড. সরকার আবদুল মান্নান -এর ৫৮ তম জন্মদিন আজ। তিনি একাধারে একজন কবি, গবেষক, প্রাবন্ধিক, শিক্ষাবিদ ও শিশুসাহিত্যিক। ভাষা ও আধুনিক গদ্যসাহিত্যে রয়েছে তাঁর অগাধ পাণ্ডিত্য। বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত জগদীশ গুপ্তের রচনা ও জগৎ, উপন্যাসে তমসাবৃত জীবন : নরেশচন্দ্র সেনগুপ্ত, জগদীশগুপ্ত মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়, বাংলা কথাসাহিত্য : আধুনিকতার কুশীলবসহ অসংখ্য গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থের স্রষ্টা তিনি। নিজস্ব সাহিত্য-চিন্তন, বিশ্লেষণ আর কথার বুননে তিনি জায়াগা করে নিয়েছেন বাংলা সাহিত্যের অনন্য উচ্চতায়।
দেশবরেণ্য এই লেখক ও শিক্ষাবিদ চাঁদপুরের সূর্যসন্তান। তিনি ১৯৬৪ সালের ২১ জুলাই চাঁদপুরের মতলব উপজেলার জহিরাবাদ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা মো: আবদুল হাকিম সরকার, মা মমতাজ বেগম। নিজ গ্রামের এখলাপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও সরকারি তোলারাম কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। এরপর ১৯৮৫ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে সম্মানসহ স্নাতক, ১৯৮৬ সালে স্নাতকোত্তর, ১৯৯৫ সালে এম.ফিল এবং ২০০২ সালে পি.এইচ.ডি ডিগ্রি অর্জন করেন।
সরকার আবদুল মান্নান বর্ণাঢ্য কর্মজীবনে দেশের বিভিন্ন সরকারি কলেজে অধ্যাপনা করেছেন। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের বিশেষজ্ঞ, সম্পাদক, প্রধান সম্পাদক, জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমি এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালকসহ সহ শিক্ষা সংক্রান্ত সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁর দাম্পত্যসঙ্গী ফেরদৌসী মমতাজ। পুত্র মোহাম্মদ আনোয়ারুল আজিম সাকিব ও কন্যা সামিয়া সাবরিনা আফরোজ সেঁজুতি।
ড. সরকার আবদুল মান্নানের উল্লেখযোগ্য গ্রন্থগুলো হলো: শিক্ষা ও স্বদেশচিন্তা, কবিতার রূপকল্প ও আত্মার অনুষঙ্গ, গল্পের আল্পনা, কবিতার স্থাপত্যরীতি ও অন্যান্য প্রবন্ধ, বাংলা কথাসাহিত্য : ভিন্ন স্বর ভিন্ন শৈলী, শব্দের জগৎ, সম্পাদিত গল্পগ্রন্থ : জগদীশগুপ্তের শ্রেষ্ঠ গল্প। শিশুসাহিত্যের মধ্যে রয়েছে : দুষ্টু রাজকুমার ও অন্যান্য গল্প, জলের সঙ্গে শৈশব, কাক ও পুতুলের গল্প, ইঁদুর শিকারি ডুরি, পালতোলা নৌকা, জ্যোছনা রাতে ভূত, গল্পগুলো চিরকালের (সম্পাদিত), চিল ও মুরগীর ছানা। যৌথ সম্পাদিত পাঠ্যপুস্তক (এনসিটিবি) : আনন্দপাঠ, ৬ষ্ঠ, ৭ম ও ৮ম শ্রেণি, রচনা সম্ভার, ৬ম-৮ম শ্রেণি, চারুপাঠ, ৬ষ্ঠ শ্রেণি, সপ্তবর্ণা, ৭ম শ্রেণি, সাহিত্য কণিকা, ৮ম শ্রেণি, সাহিত্যপাঠ, একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণি।
সাহিত্যকর্মের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি সাহিত্য মঞ্চ প্রবর্তিত ‘মোহাম্মদ নাসিরউদ্দীন সাহিত্য পুরস্কার’সহ অসংখ্য পুরস্কার ও সম্মাননা পেয়েছন।
লেখক : আশিক বিন রহিম। তথ্যঋণ : চাঁদপুরের চাঁদমুখ।

ফোকাস মোহনা.কম